23 Jun 2021, 3:05 AM (GMT)

Coronavirus Stats

30,067,305 Total Cases
391,385 Death Cases
29,034,224 Recovered Cases

জেলা

  • খুলে গেল কালীঘাট মন্দিরের দরজা

    স্টাফ রিপোর্টারঃ করোনা পরিস্থিতি থিতিয়ে আসতেই খুলে গেল কালীঘাট মন্দির। মঙ্গলবার সকাল ৬টায় কালীঘাট মন্দির খোলা হয়। আপাতত বেলা ১২টা পর্যন্ত খোলা রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে এখনই গর্ভগৃহে ঢোকার অনুমতি দেওয়া হচ্ছে না। কালীঘাট টেম্পল কমিটির সহ সভাপতি বিদ্যুৎ হালদার জানান, ‘‌মা কালীর দর্শন চেয়ে আমাদের কাছে অনেক অনুরোধ আসছিল।

    তাই আমরা বৈঠক করে দিনে ৬ ঘণ্টা মন্দির খোলা রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। কিন্তু আমরা জানিয়ে দিয়েছি, করোনা বিধি মেনেই মন্দিরে প্রবেশ করতে হবে। দূর থেকে দর্শন করে মন্দির থেকে বেরিয়ে যেতে হবে।’‌ এদিন মন্দির খোলা রাখার জন্য প্রশাসনিক সব ব্যবস্থাই রাখে মন্দির কমিটি। হিন্দু শাস্ত্র মতে, মঙ্গলবার থেকে শুরু হয়েছে অম্বুবাচী। এই সময় ২২ থেকে ২৫ জুন মন্দির বন্ধ রাখা হয়। কিন্তু কালীঘাটের ক্ষেত্রে অবশ্য নিয়ম আলাদা।

    এই সময় কালীঘাট মন্দিরে নিত্যপুজো ও ভোগ হয়। অম্বুবাচী তিথি হলেও কালীঘাট মন্দিরে ভক্তদের ঢুকতে কোনও বাধা নেই বলে মন্দির কর্তৃপক্ষ জানিয়ে দিয়েছে।

  • রাজনীতি পরে,এখন মানুষকে বাঁচাতে হবে, জলমগ্ন ঘাটাল ঘুরে বললেন দেব

    স্টাফ রিপোর্টার : টানা বৃষ্টির জেরে জলমগ্ন হয়ে পড়ল পশ্চিম মেদিনীপুরের ঘাটাল। এ বার পরিস্থিতি দেখতে এলাকায় গেলেন স্থানীয় সাংসদ দেব। বৃষ্টির জলে ভেঙে গিয়েছে ঘাটালের ঝুমি নদীর উপর মনসুখা এলাকার সেতু। টানা বৃষ্টির দাপটে ঘাটাল শহরেও ঢুকে পড়ে জল। বৃষ্টির পরে নিজের এলাকার পরিস্থিতি দেখতে মঙ্গলবার হাজির হন দেব।

    সঙ্গে ছিলেন জেলাশাসক রশ্মি কোমল, জেলা পুলিশ সুপার দীনেশ কুমার, জেলা পরিষদের-সহ সভাধিপতি অজিত মাইতি।ঘাটালের মনসুখা এলাকায় ভেঙে যাওয়া সেতু পরিদর্শনের পাশাপাশি জলমগ্ন এলাকার মানুষদের সঙ্গে কথা বলেন দেব। তুলে দেন ত্রাণসামগ্রী। নৌকায় করে ঘুরে দেখেন পরিস্থিতি। পরে ঘাটাল মহকুমাশাসকের দফতরে একটি বৈঠকও করেন তিনি। সেখানে বৃষ্টি পরবর্তী পরিস্থিতি মোকাবিলার বিষয়ে মূলত আলোচনা হয়েছে।ঘাটাল মাস্টার প্ল্যান নিয়ে মঙ্গলবার ঘাটালের বেশ কিছু এলাকায় পোস্টার পড়ে। এ প্রসঙ্গে দেব বলেন, ‘‘এখন রাজনীতির সময় নয়। সব বিষয়ে রাজনীতি করলে মানুষের রাজনীতি থেকে বিশ্বাস উঠে যাবে। অনেক কিছুই বলতে পারতাম।

    ঘাটালের মাস্টার প্ল্যান নিয়ে অনেক বার চিঠি পাঠিয়েছি। কিন্তু সদুত্তর পাওয়া যায়নি। এখন লক্ষ্য, মানুষকে কী ভাবে বাঁচিয়ে রাখব। মানুষগুলোকে আগে বাঁচাতে হবে। যে বাড়িগুলি ভেঙে পড়েছে তার তালিকা করে মুখ্যমন্ত্রীর কাছে পাঠানো হবে।’’ তিনি আরও বলেন, ‘‘এখনও অনেক জায়গায় জল রয়েছে। গ্রাম ঘুরে দেখলাম। অনেকে ত্রাণ শিবিরে থাকতে চান না। তবুও থাকতে হচ্ছে।’’

  • নদীতীরবর্তী এলাকায় ৪০ হাজার ম্যানগ্রোভ রোপনের উদ্যোগ নিল সুন্দরবন পুলিশ

    ইয়াস পরবর্তী পরিস্থিতিতে নদীবাঁধ মেরামতের পাশাপাশি ম্যানগ্রোভ রোপনের প্রয়োজনীয়তা আবশ্যক হয়ে পড়েছে। সেইকথা মাথায় রেখে পশ্চিমবঙ্গ বনদপ্তরের সহযোগিতায় নদী তীরবর্তী এলাকায় ৪০ হাজার ম্যানগ্রোভ রোপনের লক্ষ্য নিয়েছে সুন্দরবন জেলা পুলিশ।

    শনিবার দক্ষিণ ২৪ পরগনার ঢোলাহাট, ফ্রেজারগঞ্জ এবং গঙ্গাসাগরে বিভিন্ন সচেতনামূলক কর্মসূচির মাধ্যম এই অভিযান শুরু করে তাঁরা। এদিন রায়দিঘি থানার অন্তর্গত মানি নদীর তীরে ৮০০ নতুন ম্যানগ্রোভ চারা রোপন করা হয়। এলাকার স্থানীয় বিধায়ক এবং অন্যান্য বিশিষ্ট ব্যক্তিদের উপস্থিতিতে সুন্দরবন জেলা পুলিশের সুপারিনটেন্ডেন্ট ভাস্কর মুখোপাধ্যায় এই কর্মসূচীর শুভসূচনা করেন।

  • আগামী সপ্তাহেই কলকাতায় শুরু হচ্ছে মেট্রো পরিষেবা

    স্টাফ রিপোর্টারঃ করোনা কিছুটা বাগে আসতেই ফের চালু হচ্ছে কলকাতার লাইফ লাইন, মেট্রো। ২১ জুন অর্থাৎ সোমবার থেকে শহরে চালু হচ্ছে মেট্রো পরিষেবা। আপাতত প্রতিদিন চলবে ২০ জোড়া মেট্রো । উঠতে পারবেন বিশেষ কয়েকটি পেশার সঙ্গে যুক্তরা। জানা গিয়েছে, ২১ জুন থেকে ফের ছুটবে মেট্রো। দিনে মোট ৪০ টি মেট্রো চলবে।

    দমদম ও কবি সুভাষ উভয় স্টেশনেই পরিষেবা শুরু হবে সকাল ৯ টায়। ১১.১৫ পর্যন্ত ১৫ মিনিটের ব্যবধানে মিলবে মেট্রো। আবার দুপুর ৩.৪৫ থেকে শুরু হবে পরিষেবা। সন্ধে ৬ টায় দমদম ও কবিসুভাষ থেকে ছাড়বে অন্তিম মেট্রো। বিকেলেও ১৫ মিনিট অন্তর মেট্রো পাওয়া যাবে। তবে সাধারণ মানুষ এখনই মেট্রো পরিষেবা ব্যাবহারের অনুমতি পাবেন না। বিশেষ কয়েকটি পেশার সঙ্গে যুক্তরা মেট্রোয় যাত্রা করতে পারবেন।

    নির্দেশিকা অনুযায়ী, স্বাস্থ্যকর্মী, আইন-আদালতের সঙ্গে যুক্ত, সমাজকর্মী, ব্যাংক, বিদ্যুৎ, জল,টেলিকম, ইন্টারনেট, দমকল, বিপর্যয় মোকাবিলা, স্যানিটাইজেশন, খাদ্য, বিমা, সাংবাদিকতা ও শ্মশানকর্মীরা মেট্রোয় যাতায়াত করতে পারবেন। তবে প্রত্যেকের কাছে পরিচয় পত্র থাকা আবশ্যক।

  • উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল থেকে পলাতক ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত মহিলা, চলছে জোর তল্লাশি

    স্টাফ রিপোর্টার : করোনা, ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের আতঙ্কের মাঝে নয়া বিপত্তি। উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল থেকে পলাতক মিউকরমাইকোসিস বা ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে সংক্রমিত এক মহিলা। কোথায় পালিয়ে গেলেন ওই মহিলা, তা নিয়েই তৈরি হয়েছে ধোঁয়াশা। তাঁর খোঁজ শুরু করেছে পুলিশ।জানা গিয়েছে, ওই মহিলা মুর্শিদাবাদের বাসিন্দা।

    গত কয়েকদিন আগেই নানা শারীরিক উপসর্গ নিয়ে উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে ভরতি হন বছর পঞ্চান্নর ওই মহিলা। পরীক্ষা নিরীক্ষা করে জানা যায়, ওই মহিলার শরীরে থাবা বসিয়েছে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস। সেকথা জানানো হয় তাঁকে। হাসপাতাল সূত্রে খবর, শরীরে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস সংক্রমণের কথা শুনে বেশ উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন রোগী। কিছুক্ষণ পর নার্সরা তাঁর খোঁজ নিতে আসেন। দেখেন নির্দিষ্ট বেডে নেই ওই মহিলা। শুরু হয় খোঁজখবর। গোটা হাসপাতালেই পাওয়া যায়নি তাঁকে। মহিলার উধাও হয়ে যাওয়ার ঘটনা পুলিশকে জানানো হয়েছে।

    এ বিষয়ে উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের ডিন সন্দীপ সেনগুপ্ত বলেন, “আমাদের মেডিক্যাল কলেজ থেকে এক মিউকরমাইকোসিস সংক্রমিত এক মহিলা উধাও হয়ে গিয়েছেন। সে বিষয়ে ইতিমধ্যেই  পুলিশকে জানানো হয়েছে।” পুলিশ ওই মহিলার খোঁজ করছেন।

  • উদ্ধার ৫৬ কেজি পচা মাংস উদ্ধার

    স্টাফ রিপোর্টারঃ রাজ্যে ফের ভাগাড় কাণ্ডের ছায়া। বৃহস্পতিবার রাতে হুগলির চুঁচুড়া থেকে উদ্ধার হয়েছে ৫৬ কেজি পচা মাংস। ঘটনায় ইতিমধ্যে এক ব্যবসায়ীকে ইতিমধ্যে গ্রেপ্তার করেছেন পুলিশ আধিকারিকরা। আর এই ঘটনাই ফের উসকে দিল ভাগার কাণ্ডের স্মৃতি। জানা গিয়েছে, এদিন রাতে চন্দননগর পুলিশ কমিশনারেটের অন্তর্গত এনফোর্সমেন্ট শাখার আধিকারিকরা এবং ফুড সেফটি অফিসার চুঁচুড়ার খরুয়া বাজার এলাকায় অভিযান চালান।

    তখনই একটি মাংসের দোকান থেকে ৫৬ কেজি পচা মাংস উদ্ধার হয়। ওই দোকান থেকেই এলাকার একাধিক হোটেল, রেস্তরাঁয় মাংস যেত। কিন্তু আধিকারিকরা দেখেন দোকানে রয়েছে পচা মাংস। এরপরই দোকানের ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তবে তদন্তের স্বার্থে এখনই তাঁর পরিচয় প্রকাশ্যে আনা হয়নি। এই প্রসঙ্গে চন্দননগর পুলিশ কমিশনারেটের সিপি অর্ণব ঘোষ জানান, “মাংসগুলি কতদিনের পুরনো তা জানতে পরীক্ষা করতে পাঠানো হয়েছে।

    সেই রিপোর্ট হাতে পেলেই পুরো চিত্রটা পরিস্কার হবে।” এর পাশাপাশি তিনি জানান, ওই ব্যবসায়ীর সঙ্গে আর কারা কারা এই চক্রে যুক্ত রয়েছে, কোথা থেকে ওই মাংস এসেছে, তা খতিয়ে দেখতে ইতিমধ্যে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

  • কলকাতার জলযন্ত্রণা নিয়ে রাজ্য সরকারকে খোঁচা দিলীপের

    স্টাফ রিপোর্টারঃ প্রবল বর্ষণে জলমগ্ন কলকাতা। জলযন্ত্রণা ভোগ করছে আমজনতা। এই ইস্যুকে হাতিয়ার করে এবার রাজ্য সরকারকে বিঁধলেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তিনি বলেন, “যারা দশ বছরে পারে না তারা এক বছরে পারবে বলে কেউ বিশ্বাস করবে? যখন গত বছর আমফান এল, সাতদিন ধরে অন্ধকার ছিল।

    আজকে যারা রাজ্যপালের সমালোচনা করছেন, সেচমন্ত্রীর দোষ ধরছেন, তাঁরা ক্ষমতায় থাকাকালীন, মেয়র থাকাকালীন কাজ করতে পারেননি। কারণ, তাদের ইচ্ছাই নেই কাজ করার। করোনার ভ্যাকসিন আসছে, সাধারণ মানুষ হাহাকার করছে অথচ ভ্যাকসিন পাচ্ছেন না। শুধু রাজ্যপাল এবং বিরোধীদের আক্রমণ করে মানুষকে বোকা বানানোর চেষ্টা করছে।”

  • ফ্ল্যাট খালি করার নোটিশ শোভন চট্টোপাধ্যায়কে

    স্টাফ রিপোর্টারঃ বেআইনিভাবে ফ্ল্যাট দখলের অভিযোগ তুলে শোভন চট্টোপাধ্যায়কে উচ্ছেদ নোটিস পাঠালেন প্রাক্তন মেয়রের শ্যালক শুভাশিস দাস। দীর্ঘদিন ধরেই গোলপার্কের মোড়ের কাছে বহুতলের একটি ফ্ল্যাটে থাকেন শোভন চট্টোপাধ্যায়। সূত্রের খবর, হঠাৎই সেই ফ্ল্যাট দ্রুত খালি করে দেওয়ার নোটিস পাঠান তাঁর শ্যালক।

    অভিযোগ, ফ্ল্যাটটি বেআইনিভাবে দখল করে দীর্ঘদিন ধরে সেখানে বাস করছেন শোভনবাবু। সাতদিনের মধ্যে ফ্ল্যাট খালি করতে বলা হয়েছে আইনজীবীর মাধ্যমে পাঠানো ওই নোটিসে। রত্না চট্টোপাধ্যায়ের ভাইয়ের দাবি, টেনেন্সি অ্যাক্ট অনুযায়ী কোনও চুক্তি না থাকার কারণেই সেটি বেআইনিভাবে দখল করার অভিযোগ তোলা হয়েছে। এমনকী ফ্ল্যাট খালি না করলে মামলা রুজু করার হুঁশিয়ারিও দেওয়া হয়েছে নোটিসে। নোটিস পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন শোভন চট্টোপাধ্যায় বলেই খবর। জানা গিয়েছে, শ্যালকের ‘হুমকি’ ভরা নোটিসের প্রেক্ষিতে তিনি পালটা বলেছেন, গোলপার্কের ফ্ল্যাটটিতে তিনি বেআইনিভাবে থাকেন না।

    সেখানে থাকার জন্য যাবতীয় আইনি নথিপত্র তাঁর কাছে রয়েছে। তবে এই নোটিসের পর কী পদক্ষেপ করবেন, সে বিষয়ে এখনও কিছু জানাননি।

  • খুলল তারাপীঠ মন্দির, তবে প্রবেশ করতে গেলে মানতে হবে কড়া বিধিনিয়ম

    স্টাফ রিপোর্টার : করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের প্রকোপ কমতেই খুলে গেল তারাপীঠ মন্দিরের দরজা। দীর্ঘ ১ মাস পর বিগ্রহ দর্শনের সুযোগ পাবেন ভক্তরা। তবে মন্দিরে ঢুকতে গেলে মানতে হবে একাধিক শর্ত।

    করোনাবিধি মেনে চলতে হবে কঠোর ভাবে। তারাপীঠ মন্দির কমিটির সভাপতি তারাময় মুখোপাধ্যায় জানিয়েছেন, ‘সংক্রমণের গ্রাফ কিছুটা কমায় মন্দির কমিটির পুনরায় সর্বসাধারণের জন্য মন্দিরের দরজা খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তবে বর্তমান পরিস্থিতিতে আগত পুণ্যার্থীদের বেশকিছু শর্ত মেনে মন্দিরে প্রবেশ করতে হবে।‘

  • গঙ্গা ভাঙন রুখতে প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি অধীরের

    স্টাফ রিপোর্টারঃ মালদা-মুর্শিদাবাদ জেলায় তীব্র হচ্ছে গঙ্গা ভাঙন। তাই এই নদী ভাঙনকে ‘জাতীয় বিপর্যয়’ ঘোষণা করে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী- কে চিঠি দিলেন বহরমপুরের সাংসদ অধীর রঞ্জন চৌধুরী। মালদহ জেলার কালিয়াচক, বৈষ্ণবনগর মানিকচকে ভয়াবহ গঙ্গা ভাঙনে গ্রামের পর গ্রাম গঙ্গা গর্ভে তলিয়ে গিয়েছে।

    মুর্শিদাবাদেও বিস্তীর্ণ অংশে গঙ্গা-পদ্মার ভাঙন হয়েছে। লক্ষ লক্ষ মানুষের জীবন ও জীবিকা গঙ্গা ভাঙনের ফলে বিপর্যস্ত। এই প্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে গঙ্গা ভাঙনকে জাতীয় বিপর্যয় ঘোষণা করার আবেদন জানালেন অধীর রঞ্জন চৌধুরী।

    প্রধানমন্ত্রীর কাছে তাঁর আর্জি, অবিলম্বে ‘জাতীয় বিপর্যয়’ ঘোষণা করে নদীর পাড় বরাবর ভূমিক্ষয় রোধে তহবিল বরাদ্দ করুক কেন্দ্র।

    পাশাপাশি সেচ যেহেতু রাজ্যের এক্তিয়ারে, তাই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে চিঠি দিয়ে কেন্দ্রের সঙ্গে সমন্বয় রেখে সক্রিয় হতে অনুরোধ করেছেন অধীর।

Back to top button

Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home2/biswasam/public_html/wp-includes/functions.php on line 4757