সীমান্তে তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগ বিএসএফের বিরুদ্ধে, তীব্র প্রতিক্রিয়া রাজনৈতিক মহলে

স্টাফ রিপোর্টার : বিএসএফ-এর হাতে নির্যাতনের শিকার মহিলা।তদন্তকারীদের সূত্রে জানা গিয়েছে, গত বৃহস্পতিবার রাতে উত্তর ২৪ পরগনার বাগদার জিতপুর বর্ডার আউটপোস্টের কাছাকাছি এলাকায় সীমান্ত পেরোনোর চেষ্টা করছিলেন বছর তেইশের ওই তরুণী। তাঁর সঙ্গে ছিলেন স্বামী ও দুই সন্তান। তাঁরা আদতে উত্তর ২৪ পরগনারই বসিরহাটের ত্রিমোহিনী এলাকার বাসিন্দা।

পুলিশের কাছে করা অভিযোগে ওই তরুণী জানিয়েছেন, তাঁরা রাতের অন্ধকারে সীমান্তের কাছাকাছি যাওয়ার চেষ্টা করছিলেন।এর পর সীমান্ত রক্ষী বাহিনীর তাড়া খেয়ে ওই তরুণী স্বামী-সন্তান-সহ পালানোর চেষ্টা করেন। সেই সময় স্বামী এবং এক সন্তানের কাছ থেকে তিনি অন্য সন্তান-সহ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েন।

পুলিশের কাছে ওই তরুণী জানিয়েছেন, এর পর ছোট্ট মেয়েকে নিয়ে ওই তরুণী আশ্রয় নেন সীমান্তবর্তী একটি কাঁকরোল ক্ষেতে। কাঁকরোলের মাচার নীচে তিনি যখন সন্তান নিয়ে লুকিয়ে, তখনই এক বিএসএফ কনস্টেবল তাঁদের দেখতে পান টর্চের আলোয়। এর পর তিনি ওই তরুণী এবং তাঁর শিশুকন্যাকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়। খবর পেয়ে পৌঁছন বিএসএফের এএসআই পদমর্যাদার এক অফিসার।

তিনি পোস্ট কমান্ডার। তদন্তকারীরা জানতে পেরেছেন, ওই এএসআইয়ের নির্দেশেই তাঁর অধীনস্থ কনস্টেবল তরুণীকে এর পর ধর্ষণ করেন। তরুণী পুলিশকে জানিয়েছেন, তাঁকে বলা হয়েছিল, ‘‘কনস্টেবলের কাজ শেষ হয়ে গেলেই তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হবে।’’ ‘প্রতিশ্রুতি’ মতো তাঁদের দু’জনকে ছেড়েও দেয় বিএসএফ।এর পর শুক্রবার বিকেল ৪টে নাগাদ ওই তরুণী বাগদা থানায় এসে অভিযোগ দায়ের করেন।

সেই অভিযোগের ভিত্তিতে ওই দুই বিএসএফ-কর্মীকে গ্রেফতার করা হয়। ধৃতেরা জিজ্ঞাসাবাদের সময় নিজেদের অপরাধের কথা স্বীকার করেছেন বলে পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে। ধৃতদের শনিবার বনগাঁ আদালতে হাজির করানো হয়। বিচারক অভিযুক্তদের সাত দিন পুলিশ হেফাজতে রাখার নির্দেশ দিয়েছে। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ওই তরুণীর মেডিক্যাল পরীক্ষা হয়েছে। তাঁর দেহে মারধরের চিহ্নও মিলেছে।

ধৃতদের নিজেদের হেফাজতে পেয়ে ঘটনার পুনর্নিমাণ করা হবে বলেও জানা গিয়েছে তদন্তকারীদের সূত্রে। পাশাপাশি, শনিবার ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে অভিযোগকারিণীর বয়ান রেকর্ড করা হয়েছে।ঘটনায় তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে শাসক দল তৃনমূল। তৃনমূলের সাংসদ সৌগত রায় জানিয়েছেন, ‘একজন মহিলা ধর্ষিতা হয়েছেন দুজন বিএসএফ জওয়ানের হাতে। এটা একটা জঘন্য ঘটনা।

আমরা অনেকদিনই বলেছি যে বিএসএফ সীমান্ত এলাকায় এক সন্ত্রাসের রাজত্ব তৈরি করেছে। অমিত শাহ কেও বলেছি। তিনি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী, বিএসএফ-এর দায়িত্বে। বিএসএফ-এর সংশোধন হয়নি। এই ধর্ষনের ঘটনা আবার দেখিয়ে দিল যে বিএসএফ-এর জওয়ানরা কতটা বেপরওয়া হয়ে গিয়েছে। অমিত শাহ আসার পর তো বিএসএফ আরও খারাপ হয়েছে আমরা দেখতে পাচ্ছি। অন্তত পশ্চিমবঙ্গ-বাংলাদেশ সীমান্তে বিএসএফ-এর ভুমিকা খুবই খারাপ’।

Related Articles

Back to top button
error: Content is protected !!