সিবিআইয়ের নজরে অনুব্রত ঘনিষ্ঠদের ১৮ ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট, হানা রাইস মিলেও

স্টাফ রিপোর্টার : গোরুপাচার কাণ্ডে বিপুল টাকার সম্পত্তির হদিস পেয়েছেন সিবিআই।তদন্ত যত এগোচ্ছে ততই একের পর এক রাইস মিলে বেনামে অনুব্রতর অংশীদারি, ঘনিষ্ঠদের কাছে বেনামে টাকা থাকার ব্যপারে সন্দেহ দৃড় হচ্ছে সিবিআইয়ের। এবার সিবিআইয়ের নজরে অনুব্রত ঘনিষ্ঠদের ১৮টি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট।

সেই সব অ্যাকাউন্ট থেকে আর্থিক লেনদেন হত বলে মনে করা হচ্ছে। সেই সব ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্সের তথ্য জানতে ৭টি সরকারি এবং বেসরকারি ব্যাঙ্ককে চিঠি দিয়েছে সিবিআই। তাঁদের কাছে সেই সব ব্যাঙ্কের অ্যাকাউন্টের তথ্য জানতে চেয়েছেন তদন্তকারীরা। কোথা থেকে এই অ্যাকাাউন্ট গুলিতে আর্থিক লেনদেন হত তা জানতে তৎপর সিবিআই।

পাশাপাশি, বর্ধমােনর ভোলে ব্যোম রাইসমিলের পর বোলপুরের শিবশম্ভু রাইসমিলে তল্লাশি শুরু করেছে সিবিআই।সোমবার সকাল থেকে চলে তল্লাশি।সিবিআই সূত্রে খবর, শিব শম্ভু রাইস মিলের মালিকানা রয়েছে শিবানী ঘোষের নামে। তিনি অনুব্রত মণ্ডলের দিদি। আর রাজা ঘোষ হল তাঁর ভাগ্নে। ২০১০-১২ সাল নাগাদ এই রাইস মিল লিজ নেওয়া হয়।

তারপর থেকেই এই রাইস মিল চালু করা হয়। এই রাইস মিলে অনুব্রত মণ্ডলের টাকা খাটানো হত বলে মনে করা হচ্ছে। কমলকান্তি ঘোষ ভগ্নিপতি অনুব্রত মণ্ডলের।তিনি দাবি করেছেন কীভাবে তাঁর নামে এই রাইস মিল হল তা তিনি জানেন না।শিব শম্ভু রাইস মিলের সঙ্গে কোনো যোগ নেই। এমনই দাবি করেছে অনুব্রত মণ্ডলের ভাগ্নে রাজা ঘোষ।

তিনি যদিও দাবি করেছেন বাবার নামে কোনও রাইস মিল রয়েছে কিনা সেটা তাঁর জানা নেই। তিনি ২ বছর ধরে বাবার সঙ্গে যোগাযোগ করেননি। অর্থাৎ বাবার সঙ্গে সম্পর্ক নেই। এই নিয়ে চরম জটিলতা তৈরি হয়েছে। সকলেই রাইস মিলের মালিকানার দায় এড়িয়ে গিয়েছেন।এদিকে অনুব্রতর দাবি, তিনি সিবিআইয়ের সঙ্গে একশো শতাংশ সহযোগিতা করছেন।

তাঁর কোনও বেনামি সম্পত্তি নেই।তবে সিবিআইয়ের অনুমান, নামে-বেনামে অনুব্রতর ৪৫টি সম্পত্তি রয়েছে। ওইসব সম্পত্তির সঙ্গে গোরুপাচারের সম্পর্ক রয়েছে কিনা তা জানতে দিনে দিনে তৎপর হচ্ছে সিবিআই।

Related Articles

Back to top button
error: Content is protected !!