সুন্দরবনের ব্লক স্তরেও খোলা হল কন্ট্রোল রুম, উপকূলীয় অঞ্চলে চালানো হচ্ছে নজরদারি

বিশ্ব সমাচার, কাকদ্বীপ : অবিরাম বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা। মঙ্গলবার সন্ধ্যা থেকে অবিরাম বৃষ্টি হয়েই চলেছে। বুধবারও দিনভর জেলায় ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টি হয়েছে। তবে সুন্দরবনের উপকূলীয় অঞ্চলে বৃষ্টির পরিমান ছিল বেশী। এদিকে আবার বৃহস্পতিবার থেকে পূর্নিমার কোটাল।

তার জেরে এদিন থেকেই সুন্দরবনের নদী ও সমুদ্রে জলস্তর বৃদ্ধি পাবে। আর এই পরিস্থিতিতে নিম্নচাপ ও কোটালের জোড়া ফলায় আশঙ্কিত হয়ে পড়েছেন সুন্দরবনবাসী। বিশেষ করে নদী বাঁধের কাছাকাছি থাকা বাসিন্দারা বেশি আতঙ্কিত। টানা বৃষ্টিতে মাটি নরম হয়ে গেছে। এরপর জলস্তর বাড়লে ভাঙতে শুরু করবে দুর্বল বাঁধগুলি। আগামী শনিবার পর্যন্ত এই জলস্ফীতি চলবে।

সেক্ষেত্রে সুন্দরবনের উপকূলবর্তী এলাকায় প্লাবন পরিস্থিতি তৈরী হতে পারে। যদিও জেলা প্রশাসন দুর্যোগ মোকাবিলায় বিশেষভাবে প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে। জেলার পর্যটন কেন্দ্র বকখালি, ফ্রেজারগঞ্জ, গঙ্গাসাগরে পর্যটক ও পুণ্যার্থীদের সমুদ্রে নামার ওপর নজরদারি বাড়ানো হয়েছে।

প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে সাগরের সব ফেরি সার্ভিস বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। সাগরের বিভিন্ন ঘাট থেকে ভুটভুটি ও লঞ্চে যাত্রী পারাপার আপাতত বন্ধ রাখা হয়েছে।

অন্যদিকে কাকদ্বীপের লট নং আট থেকে কচুবেড়িয়ার মধ্যে চলাচলকারী ভেসেল পরিষেবা, পরিস্থিতির ওপর বিবেচনা চালু রাখা হবে বলে ব্লক প্রশাসনের পক্ষ থেকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এছাড়াও ব্লক স্তর পর্যন্ত কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে। সেচ দপ্তরকে বিশেষভাবে সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে।

কাকদ্বীপ মহকুমা শাসকের দপ্তরে খোলা কন্ট্রোল রুম থেকে ব্লক গুলিতে নজরদারি চালানো হচ্ছে। যোগাযোগ রাখা হচ্ছে উপকূলীয় অঞ্চল গুলিতে। শুকনো খাবার ও পানীয় জলের পাউচও মজুদ করে রাখা হয়েছে।

Related Articles

Back to top button
error: Content is protected !!