১৪ দিনের জেল হেফাজত পার্থ- অর্পিতার

স্টাফ রিপোর্টার: ইডি হেফাজতের পর এবার পার্থ চট্টোপাধ্যায় ও অর্পিতা মুখোপাধ্যায়ের ১৪ দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দিল ব্যাঙ্কশাল আদালত। শুক্রবার জোকা ইএসআই হাসপাতালে পার্থ ও অর্পিতার শারীরিক পরীক্ষা নিরীক্ষা করা হয়। এরপর ব্যাঙ্কশাল আদালতে তোলা হয় তাঁদের। এদিন পার্থের জামিনের জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করেন আইনজীবী।

পার্থর জামিনের আবেদন জানিয়ে আদালতে তাঁর আইনজীবী বলেন, তাঁর মক্কেল কখনও এক পয়সাও ঘুষ নেননি, ঘুষ নেওয়ার কোনও প্রমাণও মেলেনি। বেহালা পশ্চিম থেকে তৃণমূলের টিকিটে জয়ী তৃণমূল নেতা তাঁর বিধায়ক পদটি থেকেও ইস্তফা দেওয়ার কথা ভাবছেন।পালানোর লোক নন পার্থ।

তিনি এখন একজন সাধারণ মানুষ।সমস্ত ডিড যা উদ্ধার হয়েছে, সবই নকল।পাশাপাশি শারীরিক অবস্থার কথাও এদিন আদালতের কাছে তুলে ধরেন আইনজীবীরা। আর তা তুলে ধরেই মূলত এদিন পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের আইনজীবী জামিনের আবেদন জানান। তবে তাঁর আবেদন খারিজ করে দেয় আদালত।অন্যদিকে প্রাণনাশের আশঙ্কা করেন বান্ধবী অর্পিতা মুখোপাধ্যায়ের আইনজীবী।

শুধু তাই নয়, পরিস্থিতি বুঝে প্রথম শ্রেনির বন্দির মর্যাদা অর্পিতাকে দেওয়ার দাবিও এদিন আইনজীবী জানান। কেন এমন আশঙ্কা তা অবশ্য স্পষ্ট ভাবে কিছু বলেলনি আইনজীবী। ইডির তরফে শুক্রবার পার্থ চট্টোপাধ্যায় ও অর্পিতা মুখোপাধ্যায়ে, দুজনের জন্যই জেল হেফাজতের আবেদন করা হয়।

১৪ দিনের জেল হেফাজতের জন্য আবেদন করে ইডি। আদালত সেই আবেদন মঞ্জুর করে। ১৮ অগস্ট পর্যন্ত জেল হেফাজতের নির্দেশ দেয়। সওয়াল জবাব শেষে বিচারক জানান, আপাতত পার্থ এবং অর্পিতা দু’জনেরই ১৪ দিনের জেল হেফাজত।

পার্থ চট্টোপাধ্যায় থাকবেন প্রেসিডেন্সিতে এবং অর্পিতার ঠিকানা আলিপুর সংশোধনাগার। দু’জনেরই নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতে হবে। একজন তদন্তকারী আধিকারিক জেলে গিয়ে তাঁদের জেরা করতে পারবেন।

 

 

Related Articles

Back to top button
error: Content is protected !!