হুড়োহুড়ি, দিনভর চরম বিভ্রান্তিতে দিন কাটল যাত্রীদের

স্টাফ রিপোর্টার : শেষ লোকাল কখন ছাড়বে তা নিয়ে দিনভর চরম বিভ্রান্তিতে দিন কাটল যাত্রীদের৷ রবিবার রাজ্য সরকারের তরফে জানানো হয়েছিল, সন্ধে সাতটায় শেষ লোকাল ট্রেন ছাড়বে৷ শেষ লোকাল কখন ছাড়বে তা নিয়ে এর পর থেকেই শুরু হয় বিভ্রান্তি৷ পূর্ব রেল জানায়, সব স্টেশন থেকে সন্ধে সাতটায় ছাড়বে শেষ লোকাল৷ কিন্তু দক্ষিণ পূর্ব রেল সিদ্ধান্ত নেয়, তাদের শাখার সব লোকাল ট্রেনের যাত্রাই শেষ হবে সন্ধে সাতটা বা তার আগে৷ সেই অনুযায়ী, বিকেল ৫.০৫ মিনিটে সোমবার হাওড়া থেকে শেষ পাশকুড়া লোকাল ছেড়ে চলে যায়৷

শেষ ট্রেন কটায় ছাড়বে তা নিয়েই বিভ্রান্ত ছিলেন যাত্রীরা৷ তাঁদের অনেকেই ভেবেছিলেন, সন্ধে সাতটা পর্যন্ত ট্রেন চলবে৷ ফলে অনেকেই পাশকুড়াগামী শেষ লোকাল ট্রেন পাননি৷ট্রেন না পেয়ে আরপিএফ দফতরে বিক্ষোভও দেখান যাত্রীরা৷বিকেলে হাওড়া থেকে শেষ ট্রেন ধরতে গিয়ে হুড়োহড়িতে আহতও হলেন বেশ কয়েকজন যাত্রী৷ এর পরেই হাওড়া স্টেশনে শুরু হয় যাত্রী বিক্ষোভ৷ আরপিএফ অফিসের পাশাপাশি স্টেশন মাস্টারের অফিসেও বিক্ষোভ দেখানো হয়৷

যাত্রীদের দাবি, পূর্ব রেল যেখানে সাতটা পর্যন্ত ট্রেন চালাচ্ছে সেখানে দক্ষিণ পূর্ব রেল কেন একই পথে হাঁটবে না? একই ছবি ছিল শিয়ালদহ শাখার বিভিন্ন স্টেশনেও৷ ট্রেন ধরবেন বলে অনেকেই অফিস থেকে তাড়াতা়ডি বেরিয়ে স্টেশনে চলে এসেছিলেন৷ পঞ্চাশ শতাংশ যাত্রী নিয়ে চলার বিধিকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে অন্যান্য দিনের থেকেও বেশি ভিড় ছিল অনেক ট্রেনে৷ এমন কি, ভিড় ট্রেনে উঠতে গিয়ে দমদম স্টেশনে পড়ে গিয়ে আহতও হন এক ব্যক্তি৷

শেষ পর্যন্ত যাত্রীদের এই দুর্ভোগের কথা মাথায় রেখেই রবিবারের নির্দেশিকা সংশোধন করে রাত দশটা পর্যন্ত লোকাল ট্রেন চালানোর অনুমতি দেয় নবান্ন৷ রাজ্য সরকারের এই নির্দেশে স্বস্তি ফেরে যাত্রীদের মধ্যে৷

Related Articles

Back to top button
error: Content is protected !!