বাঘের আক্রমণে জখম ১ মৎস্যজীবী, অন্যদিকে আতঙ্ক পাথরপ্রতিমায়

রবীন্দ্রনাথ সামন্ত, সুন্দরবন : সুন্দরবনের গোসাবায় এক দিকে যখন বাঘের আক্রমণে জখম মৎস্যজীবী, ঠিক সেই মুহূর্তে সুন্দরবনের আর এক প্রান্ত পাথর প্রতিমায় বাঘ আতঙ্কে আতঙ্কিত এলাকাবাসী। রবিবার সন্ধ্যায় গোসাবায় বাঘের আক্রমণে গুরুতর জখম হন মৎস্যজীবী আর্শীষ দাস। সুন্দরবনের ৭ নম্বর পীরখালির জঙ্গল এলাকায় কাঁকড়া ধরার সময় এই ভয়ঙ্কর ঘটনা ঘটে। এক মুহূর্ত দেরী না করে আশীষকে উদ্ধার করে সঙ্গীরা নৌকায় তুলে নিয়ে গোসাবায় পৌঁছোন।

এরপরই গোসাবা ব্লক গ্রামীণ হাসপাতালে তাঁকে ভর্তি করা হয়। প্রাথমিক চিকিৎসার পর ওই মৎস্যজীবীর অবস্থা অত্যন্ত সঙ্কটজনক হওয়ায়, রাতেই তাঁকে কলকাতার চিত্তরঞ্জন হাসপাতালে স্থানান্তরিত করেন চিকিৎসকেরা। বর্তমান আশাঙ্কাজনক অবস্থায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন ওই মৎস্যজীবী। অন্যদিকে বাঘের আতঙ্ক ছড়িয়েছে পাথরপ্রতিমায়। রবিবার পাথরপ্রতিমার হেরম্ব গোপালপুর অঞ্চলের দক্ষিণ কাশীনগরের কাছে সরলার জঙ্গলে মৎস্যজীবীরা বাঘ দেখতে পান, বলে জানা গিয়েছে।

এমনকি বাঘের পায়ের ছাপও দেখতে পাওয়া গিয়েছে বলে এলাকাবাসীদের দাবি। সেই খবর চাউর হতেই আতঙ্কিত হয়ে পড়েন এলাকাবাসী। বাঘ ঢুলি ভাসানী দু’নম্বর জঙ্গল থেকে ঠাকুরান নদী পেরিয়ে লোকালয়ে ঢুকে পড়েছে বলে এলাকার বাসিন্দাদের দাবি। তবে স্থানীয়দের মাধ্যমে খবর পেয়ে সোমবার সকালে এলাকায় আসেন বন দপ্তরের রায়দিঘি রেঞ্জের অফিসাররা।

এরপর বনকর্মীদের উদ্যোগে সরলা জঙ্গল লাগোয়া দক্ষিণ কাশীনগর এলাকায় জাল লাগানোর কাজ শুরু। চলছে নেট জাল দিয়ে ঘেরার কাজ। যাতে বাঘ লোকালয়ে ঢুকে পড়তে না পারে, তার জন্যই জাল দিয়ে জঙ্গল ঘেরার কাজ চলছে বলে, বনদপ্তর সূত্রে জানা যায়।

Related Articles

Back to top button
error: Content is protected !!