যুবকের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার

বিশ্ব সমাচার, নামখানা : বাড়ির ভেতর থেকে যুবকের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধারকে কেন্দ্র করে চাঞ্চল্য ছড়ালো এলাকায়। ঘটনাটি ঘটেছে নামখানার ফ্রেজারগঞ্জের পশ্চিম শিবপুর এলাকায়। সারাদিন নিখোঁজ থাকার পর শনিবার সন্ধ্যার সময় নিজের কাঁচা মাটির বাড়ির দোতলার একটি পরিত্যক্ত রুমের মধ্য থেকে বছর ২৩ এর যুবক সমীর দাসের ঝুলন্ত দেহ দেখতে পাওয়া যায়। সমীর শুক্রবার রাত থেকে শিবপুরের নিজের বাড়ি থেকে বেরিয়ে যায়।

রাতভর বাড়ির বাইরে ছিল। সকালে ছেলে বাড়িতে না ফেরায় সমীরের মা এবং তার বাবা দিনভর তার বন্ধু বান্ধবদের ফোন করেন এবং আত্মীয় বাড়িতে খোঁজ নেন। কিন্তু কোনো রকমের খোঁজ মিল ছিল না সমীরের। ভাইয়ের খোঁজ না মেলায় সমীরের দিদি শিলা জানা বাপের বাড়িতে শুক্রবার আসেন। ভাইয়ের ফোনে বারবার ফোন করতে থাকেন। কিন্তু ফোন বন্ধ থাকায় কোনো রকমভাবে যোগাযোগ করা সম্ভব হচ্ছিল না। কোথাও মনে সংকোচ হওয়ায় শনিবার বিকালে সমীরের দিদি শীলা মাটির বাড়ির দোতলার পরিতক্ত রুমে খোঁজ করতে যান।

দোতলার রুমে উঠে যা দেখলেন, তা কল্পনাও করতে পারেনি সমীরের দিদি। পরিতক্ত রুমের আড়কাটে ঝুলছে সমীরের দেহ। চিৎকার জুড়ে দেয় শিলা। তারপর শিলার চিৎকারে বাড়ির অন্যান্য লোকজন ছুটে আসেন। অবশেষে প্রতিবেশীদের সহযোগিতায় সমীরের ঝুলন্ত দেহ আড়কাঠ থেকে নামানো হয়। খবর দেওয়া হয় ফ্রেজারগঞ্জ কোস্টাল থানায়। ফ্রেজারগঞ্জ কোস্টাল থানার পুলিশ এসে সমীরের দেহ উদ্ধার করে দ্বারিকনগর গ্রামীণ হাসপাতালে পাঠায়। দ্বারিকনগর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে সমীরকে মৃত বলে ঘোষণা করেন চিকিৎসক।

এরপর ময়নাতদন্ত করার জন্য সমীরের দেহ মর্গে পাঠানো হয়। যদিও পুরো ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে ফ্রেজারগঞ্জ কোস্টাল থানার পুলিশ। এবিষয়ে সমীরের বাবা বলেন, তার ছেলে যথেষ্ট শান্ত স্বভাবের ছিল। সেভাবে কোনো কাজকর্ম করত না। সমীরের বাবার ট্রলার ব্যবসা রয়েছে। মাঝেমধ্যে ব্যবসার কাজ সামলাতেন সমীর। কিন্তু হঠাৎ কেন যে এই ঘটনা ঘটলো, তা কেউই বুঝে উঠতে পারছেন না।

Related Articles

Back to top button
error: Content is protected !!