05 Aug 2021, 5:19 AM (GMT)

Coronavirus Stats

31,815,756 Total Cases
426,434 Death Cases
30,974,748 Recovered Cases
কাকদ্বীপখবরদক্ষিণ ২4 পরগণা

১০০ শতাংশ ভ্যাকসিনেশনের উদ্যোগ নিল গ্রাম পঞ্চায়েত

রাজা দাস, কাকদ্বীপ : একদিকে ভুয়ো ভ্যাকসিন কান্ড আর অপরদিকে পর্যাপ্ত ভ্যাকসিনের অভাবে রাজ্য জুড়ে যখন বিক্ষোভ, ধর্না ও আন্দোলনে রাজ্য রাজনীতি উত্তাল, ঠিক তখনই নিঃশব্দে পঞ্চায়েত এলাকার প্রতিটি মানুষকে ভ্যাকসিন দেওয়ার উদ্যোগ নিল কাকদ্বীপের প্রতাপাদিত্যনগর গ্রাম পঞ্চায়েত।এমনিতেই করোনা অতিমারীর শুরু থেকেই সাধারণ মানুষের জন্য নানা ধরণের প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করেছিল এই গ্রাম পঞ্চায়েত। সেই সময়ে পঞ্চায়েতের উদ্যোগে খোলা হয়েছিল কমিউনিটি কিচেন ও সেফ হোম। পাশাপাশি লাগাতার লক্ ডাউনের ফলে আর্থিক ভাবে বিপর্যস্ত সাধারণ মানুষের জীবিকা উন্নয়নের জন্যেও, পঞ্চায়েত তহবিল থেকে মুরগি পালন, মাশরুম চাষ, মাছ চাষ, জৈব চাষ প্রভৃতি কর্মসূচি রূপায়িত হচ্ছে পঞ্চায়েত এলাকায়।আর এবার ১৮ বছরের বেশি বয়সীদের করোনা প্রতিষেধক ভ্যাকসিন দেওয়ার জন্য উদ্যোগী নিল গ্রাম পঞ্চায়েত।সোমবার গ্রাম পঞ্চায়েত কার্যালয়ে গিয়ে দেখা যায়, রেজিস্ট্রেশান কাউন্টারের সামনে মানুষের লম্বা লাইন। এ বিষয়ে গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান দেবব্রত মাইতি জানান, “গ্রাম পঞ্চায়েতের তত্ত্বাবধানে এই ভ্যাকসিন দেওয়ার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। এর জন্য প্রথমে ১৮ থেকে ৪৪ বছর বয়সী এবং ৪৫ বছরের বেশি বয়সীদের জন্য দুটি পৃথক তালিকা তৈরি করা হচ্ছে।তালিকা তৈরির জন্য আধার কার্ড ও মোবাইল নম্বর সংগ্রহ করার কাজ প্রতিদিন চলছে। তারপর পঞ্চায়েতের কর্মীরা সেই তালিকা ধরে ফোন করে ক্যাম্পের দিনক্ষণ আগাম জানিয়ে দিচ্ছেন। সবাই যাতে গ্রাম পঞ্চায়েতের এই উদ্যোগের খবর পান, সেই জন্য লাগাতার মাইকিংও করা চলছে।” দেবব্রত বাবু আরও বলেন, “চলতি বছরের মে মাস থেকে এ পর্যন্ত প্রায় ৩ হাজারের বেশি মানুষকে ভ্যাকসিন দেওয়া সম্ভব হয়েছে।পঞ্চায়েতের লক্ষ্য করোনার তৃতীয় ঢেউ আসার আগেই গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার ১০০ শতাংশ মানুষকে ভ্যাকসিন দেওয়ার কাজ সম্পূর্ণ করা হবে।”এদিন স্থানীয় কাকদ্বীপ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চলা গ্রাম পঞ্চায়েতের ভ্যাকসিনেশন ক্যাম্পে গিয়ে দেখা যায়, বহু মানুষ আধার কার্ড হাতে নিয়ে কোভিড বিধি মেনে লাইন দিয়ে ভ্যাকসিন নিচ্ছেন, আর ভ্যাকসিন দেওয়ার কাজ সামলাচ্ছেন গ্রাম পঞ্চায়েতের’ই স্বাস্থ্য উপকেন্দ্রের স্বাস্থ্য কর্মীরা।এদিন ভ্যাকসিনেশন ক্যাম্পে ভ্যাকসিন নেওয়ার পর সার্টিফিকেট হাতে নিয়ে গনেশপুর তৃতীয় ঘেরীর বাসিন্দা যুগল দাস বলেন, “চার-পাঁচ দিন আগে পঞ্চায়েতে আধার কার্ড ও মোবাইল নম্বর জমা দিয়েছিলাম। কাল পঞ্চায়েত থেকে ভ্যাকসিন নেওয়ার জন্য ফোন করেছিল।” তিনি আরও বলেন, “আমাদের পঞ্চায়েত পাশে ছিল বলেই, এত সহজে আর সুষ্ঠু ভাবে ভ্যাকসিন নিতে পারলাম।”

Related Articles

Back to top button