16 Jun 2021, 9:27 AM (GMT)

Coronavirus Stats

29,633,105 Total Cases
379,601 Death Cases
28,388,100 Recovered Cases
খবররাজ্য

শিক্ষা থেকে কৃষিকাজ, প্রতিশ্রুতি ভরা তৃণমূলের ইস্তাহার

বিশ্ব সমাচার ওয়েবডেস্ক: ১০ অঙ্গীকারে দশ দিকেই পৌঁছতে চাইল তৃণমূল কংগ্রেস। লক্ষ্য ‘রাজনৈতিক ইস্তেহার নয়, উন্নয়নের ইস্তেহার’। বুধবার এই স্লোগানের সাথে তৃণমূল কংগ্রেসের নির্বাচনী ইস্তেহার প্রকাশ করলেন দলের সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর দাবি, আগের দুই ইস্তেহারে তৃণমূল যেই প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল তার ১১০ শতাংশ পূর্ণ হয়েছে। আগামী ৫বছরে ৫ লক্ষ কর্মসূচীর প্রতিশ্রুতিও রয়েছে ইস্তেহারে।

রাজ্যের কৃষি, শিল্প, রোজগার নিয়ে সুর চড়িয়েছে বিজেপি। তারই প্রত্যুত্তরে তৃণমূলের প্রতিশ্রুতি, ১ কাঠা থেকে ১ একর জমি থাকলেই ‘কৃষক বন্ধুর’ আওতায় ১০ হাজার টাকা পাবে কৃষকরা। এছাড়াও ছাত্রছাত্রীদের উচ্চশিক্ষার জন্য ১০ লক্ষ টাকার ক্রেডিট কার্ড সহ গুরুত্বপূর্ণ ‘১০ অঙ্গীকার’ থাকলো বাংলার জন্য। তৃতীয়বার ক্ষমতায় এলে কি কি কাজ করবে? কি প্রতিশ্রুতি দিলেন তৃণমূল কংগ্রেস। দেখে নিন এক নজরে-

১. পশ্চিমবঙ্গকে ভারতের পঞ্চম বৃহত্তম অর্থনীতি হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্য নেবে সরকার। ৩৫ লক্ষ মানুষকে দারিদ্র্যসীমার বাইরে নিয়ে আসার ওপর জোর দেওয়া হবে।

২. বিধবাদের কথা মাথায় রেখে বিধবা ভাতাও বাড়ানো হবে। ৫০০ টাকার জায়গায় ১০০০ টাকা করা হবে।
৩. বাংলার প্রতিটি পরিবারের নূন্যতম আয় সুনিশ্চিত করতে বদ্ধপরিকর সরকার। সেক্ষেত্রে প্রতিটি সাধারণ পরিবারকে মাসিক ৫০০ টাকা করে বার্ষিক ৬০০০ টাকা এবং তফশিলিদের মাসিক ১০০০ টাকা করে বার্ষিক ১২০০০ টাকা দেওয়া হবে।
৪. বাংলার পড়ুয়াদের উচ্চশিক্ষায় আগ্রহী এবং আত্মনির্ভর করতে থাকবে স্টুডেন্টস ক্রেডিট কার্ড। গ্যারেন্টার ছাড়া যোগ্য ছাত্রদের ৪ শতাংশ সুদে ১০ লক্ষ টাকার ক্রেডিট দেওয়া হবে।
৫. ‘কৃষকবন্ধু’ প্রকল্পে বার্ষিক অনুদান বাড়ছে। ১ কাঠা থেকে ১ একর জমি থাকলেই ১০ হাজার টাকার সুবিধা পাবে কৃষকরা।
৬. ‘বাংলা আবাস’ যোজনার আওতায় আরও ২৫ লক্ষ নতুন ঘর নির্মাণ করা হবে।

৭. বছরে চার মাস ধরে চলবে দুয়ারে সরকার কর্মসূচী। ‘খাদ্যসাথীর’ আওতায় দেড় কোটি পরিবারকে দুয়ারে রেশন পৌঁছে দেবে সরকার।
৮. রাজ্যের ৫০ টি শহরে ৫ টাকায় পেটভরে আহার দিতে ২৫০০ ‘মা’ ক্যান্টিন তৈরী করা হবে।
৯. ৫ লক্ষ নতুন কর্মসংস্থান করে রাজ্যে বেকারের সংখ্যা অর্ধেক করা হবে।
১০. মাহিষ্য, তিলি, তামুল, সাহার মতো সম্প্রদায়ের মানুষরা ওবিসি শ্রেণির অন্তর্ভুক্ত নন। তাঁদেরকে ওবিসি অন্তর্ভুক্ত করার বিষয়টি পর্যালোচনা করা হবে।

এদিন ইস্তেহার প্রকাশ করে মমতা বন্দোপাধ্যায় দাবি করেন, ”যখন রেলমন্ত্রী ছিলাম মেট্রোসহ বিভিন্ন রুটের প্রজেক্ট আমার করে দেওয়া। গত ১০ বছরে আমরা অনেক কাজ করেছি। তারমধ্যে ১ বছর করোনা মোকাবিলায় চলে গেছে। তখন মানুষের সুরক্ষা বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ ছিল। এছাড়াও আগে বাংলার আয় মাত্র ২৫,০০০ কোটি ছিল। এখন তা ৭৫,০০০ কোটি। তাই বাংলার বাজেট ৩ গুন বেড়েছে। বাংলার মানুষের আয়ও ২ গুন হয়েছে।”

Related Articles

Back to top button