24 Jul 2021, 10:09 AM (GMT)

Coronavirus Stats

31,332,159 Total Cases
420,043 Death Cases
30,503,166 Recovered Cases
খবর

লাক্ষাদ্বীপের কানুন পক্রিয়া কেরল থেকে কর্নাটকে পরিবর্তনের দাবি প্যাটেল প্রশাসনের

স্টাফ রিপোর্টারঃ নিজের কিছু রীতি-নীতি নিয়ে স্থানীয়দের বিক্ষোভের মুখে লাক্ষাদ্বীপ প্রশাসন। এরই মাঝে দ্বীপের কানুন পক্রিয়া কেরল থেকে কর্নাটকে পরিবর্তনের দাবি জানালো লাক্ষাদ্বীপের নতুন প্রশাসক প্রফুল্ল খাড়ে প্যাটেল। বর্তমানে এই নয়া প্রশাসকের বিরুদ্ধে কেরল হাইকোর্টে বেশকিছু মামলাও দায়ের রয়েছে।কোভিড মহামারী নিয়ন্ত্রণ পক্রিয়া, গুন্ডা আইন এবং দ্বীপের রাস্তা চওড়া করার মতো বিষয়গুলির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, প্রফুল্ল খাড়ে প্যাটেল কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল দমন ও দিউ’র প্রশাসক হিসেবে নিযুক্ত রয়েছেন। এরইমধ্যে ২০২০ সালে লাক্ষাদ্বীপ প্রশাসক দিনেশ্বর শর্মার মৃত্যুর পর প্রফুল্ল প্যাটেলকে এই অঞ্চলের অতিরিক্ত প্রশাসনিক দায়িত্বভার দেওয়া হয়। তারপর থেকেই নিজেকে স্বৈরশাসক হিসেবে তুলে ধরেন তিনি। শাসনভার গ্রহণ করে বহু জনবিরোধী নীতিও প্রণয়ন করেন। এ বছর লাক্ষাদ্বীপের স্থানীয় প্রশাসক এবং পুলিশের বিরুদ্ধে প্রায় ৩৪ টি আবেদন দায়ের করা হয়েছে।তবে কেরালা থেকে কর্নাটকে দ্বীপের উচ্চ আদালত পরিবর্তনের দাবির পেছনে কি কারণ রয়েছে তা স্পষ্ট নয়। যদিও ভারতীয় সংবিধানের ২৪১ নং অনুচ্ছেদ অনুযায়ী, যেকোন কেন্দ্রীয় শাসিত প্রদেশের জন্য নতুন আদালত গঠন এবং কোন আদালতকে ওই প্রদেশের উচ্চ আদালত হিসেবে চিহ্নিত করার ক্ষমতা, কেবল সংসদের হাতেই রয়েছে।

দ্বীপ থেকে কেরল হাইকোর্টের দূরত্ব মাত্র ৪০০ কিলোমিটার। সেই জায়গায় কর্ণাটক হাইকোর্টের দূরত্ব ১,০০০ কিলোমিটারেরও বেশি। অপরদিকে কর্ণাটক হাইকোর্টের সাথে যোগাযোগ ব্যবস্থায়ও সমস্যা রয়েছে। লাক্ষাদ্বীপ থেকে নির্বাচিত লোকসভা সদস্য পিপি মহম্মদ ফয়জল জানান, ‘এটি একটি সম্পূর্ণ ভুল পদক্ষেপ। মনে রাখা দরকার, কেরল এবং লাক্ষাদ্বীপের ভাষা একই। দুই এলাকায় মালয়ালম ভাষাভাষী মানুষ রয়েছে। ন্যায়পক্রিয়াও এই ভাষায় সম্পন্ন হয়ে থাকে।’ তিনি আরো বলেন, ‘এটি মনে রাখা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ যে হাইকোর্টের নাম কেরল ও লাক্ষাদ্বীপ উচ্চ আদালত। সেক্ষেত্রে আদালত পরিবর্তনের বিশেষ কি প্রয়োজন রয়েছে এবং তার পেছনে প্যাটেলের কি ন্যায় যুক্তি রয়েছে তা অজানা।’ ফয়জল জানান, লাক্ষাদ্বীপ বাঁচাও মোর্চা কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে খুব শীঘ্রই এই প্রশাসক বদলের আবেদন জানিয়েছে। তাঁর কথায়, এর আগে ৩৬ জন প্রশাসকের কেউই লাক্ষাদ্বীপে এমন পরিস্থিতি সৃষ্টি করেননি। এমনকি এই অদ্ভুত দাবিও তোলেননি।

Related Articles

Back to top button