29 Jul 2021, 1:13 AM (GMT)

Coronavirus Stats

31,528,114 Total Cases
422,695 Death Cases
30,701,612 Recovered Cases
খবররাজ্য

বৃহন্নলাকে তুলে এনে বারুইপুরে আটকে রেখে নির্যাতনের অভিযোগ, গ্রেপ্তার ৩

প্রদীপকুমার সিংহ, বারুইপুর: গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের জেরে এক বৃহন্নলাকে তুলে এনে আটকে রেখে চরম শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগ উঠল আর এক বৃহন্নলা গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে। অভিযোগ, ওই বৃহন্নলার কপাল, মুখে জ্বলন্ত কয়লা দিয়ে ছ্যাঁকা দেওয়া হয়েছে।সেই সঙ্গে বুকের উপর পা দিয়ে বারবার আঘাত করে এবং অকথ্য নির্যাতন করা হয় বলে অভিযোগ।

ঘটনাটি ঘটেছে বারুইপুর থানার মল্লিকপুরে। এই ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। বারুইপুর থানার পুলিশ ঘটনার মূল অভিযুক্ত দক্ষিণ ২৪ পরগনার বৃহন্নলা গোষ্ঠীর প্রধান সহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে। আহত বৃহন্নলাকে কলকাতার এসএসকেএম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।বারুইপুর পুলিশ জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইন্দ্রজিৎ বসু বলেন, ওই বৃহন্নলাকে নির্যাতনের ঘটনার খবর পেয়েই পুলিশ মল্লিকপুর এলাকা থেকে অভিযুক্ত রত্না চৌধুরী সহ আরও দু’জনকে গ্রেপ্তার করেছে।

মূলত দুই গোষ্ঠীর মধ্যে ব্যবসায়িক কারণে এলাকা দখলকে ঘিরেই এই গন্ডগোল। এই ঘটনায় সোশ্যাল মিডিয়ায় তীব্র প্রতিবাদ জানান নেটিজনেরা।পুলিশ সূত্রে খবর, ওই বৃহন্নলা ঢাকুরিয়া এলাকার বাসিন্দা। সোশ্যাল মিডিয়ায় তাঁর উপর শারীরিক নির্যাতনের খবর প্রকাশ হতেই বারুইপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়।

জানা গিয়েছে, অভিযুক্ত রত্না চৌধুরী সহ তার লোকজন তাঁকে যাদবপুরের তালবাজারের কাছ থেকে তুলে এনে তার মল্লিকপুরের বাড়িতে তিন-চারদিন ধরে আটকে রেখে ওই বৃহন্নলাকে চরম শারীরিক নির্যাতন করে। এমনকী, সেই নির্যাতনের ছবিও মোবাইলে তোলা হয়। কোনও ক্রমে ওই বৃহন্নলা তাদের কাছ থেকে ছাড়া পান। এই খবরে তোলপাড় পড়ে যায় আহত বৃহন্নলা গোষ্ঠীর মধ্যে।

এমনকী, রাজ্যের নারী ও শিশুকল্যাণ মন্ত্রী শশী পাঁজার কাছেও খবর চলে যায়। এরপরেই বারুইপুরের পুলিশ সুপার তদন্তের নির্দেশ দেন বারুইপুর থানাকে। বারুইপুর থানার আইসি দেবকুমার রায়, মহিলা থানার আইসি কাকলি ঘোষকুণ্ডু ও একজন এসআইকে নিয়ে বিশেষ টিম গড়া হয় তদন্তের কাজে। মল্লিকপুরে নিজের বাড়ি থেকেই অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করা হয় বৃহস্পতিবার রাতে।

শুক্রবার সকালে থানায় ভিড় জমতে দেখে বিশাল পুলিশী ব্যবস্থা করেন বারুইপুর থানার ভারপ্রাপ্ত আধিকারিক। এখানে দুই গোষ্ঠীর লোকজনই ছিল। তাদের মধ্যে বচসা থেকে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়ে দুই গোষ্ঠী।

পুলিশ পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এদিকে, অভিযুক্ত রত্না চৌধুরী বলেন, ওই বৃহন্নলা আমাদের এলাকায় এসে চুরি করছিল। সেই কারণেই তাকে ধরে মারধর করা হয়। বারুইপুর থানার পুলিশ অভিযুক্ত তিনজনকেই শুক্রবার বারুইপুর মহকুমা আদালতে তোলে।

Related Articles

Back to top button