12 Jun 2021, 11:10 AM (GMT)

Coronavirus Stats

29,359,155 Total Cases
367,097 Death Cases
27,911,384 Recovered Cases
রাজ্য

বাংলার মানুষ আসল পরিবর্তন চাইছে , হুগলির সাহাগঞ্জ থেকে আক্রমণ মোদীর

সুদীপ্ত সামন্ত : ‘বাংলার মানুষ আসল পরিবর্তন চাইছে। ফুল বদলালেই আসল পরিবর্তন আসবে।’ সোমবার হুগলির সাহাগঞ্জে দাঁড়িয়ে এমনটাই দাবী করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তিনি বলেন, বিশ্বের বিকাশশীল দেশগুলি সঠিক সময়ে তাদের পরিকাঠামোয় উন্নয়ন করেছে। আমাদের দেশে উন্নয়নের কাজ অনেক আগে করা উচিত ছিল। অনেক দেরী হয়ে গেছে।

প্রধানমন্ত্রী বাংলার শিল্প নিয়ে বর্তমান সরকারকে আক্রমণ করবে, এই আভাস আগে থেকেই ছিল। এদিন নোয়াপাড়া-দক্ষিনেশ্বর মেট্রো রেলের শুভসূচনা করেন নরেন্দ্র মোদী। এছাড়া একাধিক মেট্রো পরিষেবায় সবুজ সঙ্কেত দেখায়। কর্মীসভা থেকে এই নিয়ে কৃতিত্বের সাথে জানান,”আগে যখন এখানে এসেছিলাম তখন গ্যাসের সংযোগের সাথে বিভিন্ন পরিকাঠামোগত উন্নয়ন প্রকল্প উপহার দিয়েছিলাম। আজ মেট্রো ও রেলের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পগুলির সূচনা হতে চলেছে। যার দরুন জীবন আরও সহজ হয়ে উঠবে।

” তবে প্রধানমন্ত্রীর এই দাবীকে ‘মিথ্যে’ বলে উল্লেখ করেছেন তৃণমূল সংসদ ডেরেক ও’ব্রায়েন। তিনি এদিন টুইট করে জানান, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রেলমন্ত্রী থাকা কালীন তাঁরই হাত ধরে এই প্রকল্পের ঘোষণা হয়েছিল। তারই ‘ফসল’ ঘরে তুলতে চাইছে বিজেপি। উল্লেখ্য, মমতা বন্দোপাধ্যায় রেলমন্ত্রী থাকা কালীন ২০১১ সালের রেল বাজেটে এই মেট্রো বাজেট বরাদ্দ হয়েছিল।

এদিন সভা থেকে বাংলাকে ‘সোনার বাংলা’ গড়ার ডাক দেন প্রধানমন্ত্রী। ঋষি অরবিন্দ, মতিলাল রায়, রাসবিহারী বোস, কানাইলাল দত্ত সহ বিভিন্ন মনিষীদের স্মরণ করে তিনি জানান, “স্বাধীনতার পূর্বে বাংলা অন্যান্য রাজ্যের তুলনায় অনেক এগিয়ে ছিল। কিন্তু তারপর যাঁরা বাংলায় শাসন করেছেন তাঁরা বাংলার এই হাল বানিয়েছেন। মা মাটি মানুষ বলে উন্নয়নের পথ রুখে দিয়েছে। পশ্চিমবঙ্গের সঙ্গে অনেক অন্যায় হয়েছে। এর পিছনে রয়েছে ভোটব্যাংকের রাজনীতি।

” এদিনের সভা থেকে নাম না করেই তিনি তৃণমূলের বিরুদ্ধে তুষ্টিকরনের রাজনীতির অভিযোগ করেন। জানান, “এমন রাজনীতি যেখানে দুর্গাপূজার অনুমতি দেওয়া হয়না।” এছাড়াও প্রতিবারের ন্যায় কিষান সন্মান নিধি এবং আয়ুষ্মান ভারত নিয়েও আক্রমণ করেন তিনি। সরকারের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ এনে বলেন, ” পৌনে দু’ কোটি পরিবারের মধ্যে মাত্র দু’লক্ষ বাড়িতে পাইপের মাধ্যমে পানীয় জলের সুবিধা রয়েছে। এই প্রকল্পে ৩ কোটি ৬০ লক্ষ বাড়িতে পাইপে জল পৌঁছে দেওয়ার জন্য টাকা পাঠানো হয়েছিল। কেন্দ্র সরকার চাপ দেওয়ার পরে মাত্র ৯ লক্ষ বাড়িতে এই সুবিধা পৌঁচেছে।” সভায় উপস্থিত মা-বোনেদের উদ্দেশ্যে প্রশ্ন ছুঁড়ে দিয়ে বলেন,

”আপনাদের পানীয় জল পাওয়ার অধিকার আছে কি নেই?” তিনি আরো বলেন, “সব বাড়িতে জল পৌঁছানোর জন্য কেন্দ্র ১৭০০ কোটি টাকার বেশি টাকা তৃণমূল সরকারকে দিয়েছে। তার মধ্যে মাত্র ৬০৯ কোটি টাকা তৃণমূল খরচ করেছে। বাকি টাকা কারচুপি করেছে। এতেই প্রমাণ হয় পশ্চিমবঙ্গের মানুষদের জন্য তৃণমূল সরকারের কোন সহানুভূতি নেই।”

এদিন বদল আনার ডাক দিয়েই বক্তব্য শুরু করেন প্রধানমন্ত্রী। তারপরই উন্নয়ন এবং বাংলার সংস্কৃতিকে সামনে রেখে মমতা সরকারের ওপর সিন্ডিকেট, কাটমানি, দুর্নীতি, গুণ্ডারাজ নিয়ে চাবুক চালায়। শেষে ভাঙা বাংলায় দাবী করেন, বাংলার কোনায় কোনায় বদলের ডাক উঠছে। উঠছে ‘আসল পরিবর্তনের সুর’। কিন্তু কী চাইছে বাংলার মানুষ? তা আর

কয়েক দিনের অপেক্ষা মাত্র।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button