24 Jul 2021, 3:36 AM (GMT)

Coronavirus Stats

31,331,145 Total Cases
420,038 Death Cases
30,495,352 Recovered Cases
খবরদক্ষিণ ২4 পরগণা

নামখানার নিখোঁজ ৩ ভাইয়ের পরিবারের পাশে দাঁড়াল কাকদ্বীপ থানা

রাজা দাস, কাকদ্বীপ : কেরালায় ট্রলারে কাজ করতে গিয়ে নিখোঁজ হয়ে যাওয়া ৩ ভাইয়ের পরিবারের পাশে দাঁড়ালো কাকদ্বীপ থানার পুলিশ কর্মীরা। বুধবার কাকদ্বীপ বিধানসভার বিধায়ক মন্টুরাম পাখিরা ও কাকদ্বীপ থানার আইসি শিবু ঘোষ নামখানা ব্লকের গণেশনগরের ২-এর ঘেরীতে নিখোঁজ তিন ভাইয়ের বাড়িতে যান।

তাঁদের পরিবারের সকলের সঙ্গে তাঁরা দেখা করেন। এছাড়াও ৩ ভাই শুকদেব দাস, শান্তিরাম দাস ও সুশান্ত দাসের পরিবারের পাশে থাকার আশ্বাস দেন। পাশাপাশি এদিন তাঁরা তিন ভাইয়ের পরিবারের হাতে এক মাসের রেশনের যাবতীয় খাদ্য সামগ্রী তুলে দেন। এ বিষয়ে বিধায়ক মন্টুরাম পাখিরা বলেন, “সোমবার সকাল বেলায় সংবাদ পত্রের মাধ্যমে এই ঘটনাটি জানতে পারি। ঘটনাটি খুবই দুঃখজনক। পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে কেরালা সরকারের প্রশাসনের আধিকারিকদের সঙ্গে যোগাযোগ করার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। তবে প্রশাসনিক এই প্রক্রিয়া শেষ করতে বেশ কিছুটা সময় লাগবে। আর তাই এই তিন পরিবারের যাতে কোনো সমস্যা না হয়, তার জন্য কাকদ্বীপ থানা নিজে উদ্যোগ নিয়ে এক মাসের এই খাদ্য সামগ্রী দেওয়ার উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।”

তিনি আরও বলেন, “নিখোঁজ মোট ৪ জন মৎস্যজীবীর পরিবারের পাশে রাজ্য সরকার রয়েছে। ইতিমধ্যেই জেলা প্রশাসনের আধিকারিকদের এই ঘটনার সম্বন্ধে অবগত করা হয়েছে।”উল্লেখ্য, জীবিকার তাগিদে নামখানা ব্লকের তিন মৎস্যজীবী ও কাকদ্বীপের এক মৎস্যজীবী কেরালায় ট্রলারে কাজ করতে গিয়েছিলেন। ৫ মে তাঁরা ট্রলারে করে মাছ ধরার জন্য সমুদ্রে বেরিয়ে যান। এরপর থেকে আজ পর্যন্ত ওই ৪ মৎস্যজীবীর সঙ্গে পরিবারের লোকজন কোনভাবে যোগাযোগ করতে পারেননি।প্রায় দু’মাস অন্ধকারের মধ্যেই রয়েছেন তাঁদের পরিবারের লোকজনেরা।

তবে তাঁরা শুনেছেন, ওই ট্রলারটির কোন খোঁজ পাওয়া যায়নি। ট্রলারটির ১৬ জন মৎস্যজীবীই নিখোঁজ রয়েছেন। এই পরিস্থিতিতে দিশেহারা হয়ে পড়েছিলেন দাস পরিবার। তবে বিধায়ক ও পুলিশ প্রশাসনের আধিকারিকরা তাঁদের পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছেন।

Related Articles

Back to top button