24 Jul 2021, 4:06 AM (GMT)

Coronavirus Stats

31,331,145 Total Cases
420,038 Death Cases
30,495,352 Recovered Cases
খবরদক্ষিণ ২4 পরগণা

করোনায় কাজ হারিয়ে গঙ্গাসাগরের কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার টোটো চালক

সমরেশ মণ্ডল, সাগর: করোনা ভাইরাসে জেরবার গোটা দেশ। বাদ যায়নি সুন্দরবনও। বহু যুবক কাজ হারিয়েছেন। তাঁদের কেউ কেউ কাজের জন্য পাড়ি দিচ্ছেন ভিন রাজ্যে। কেউবা দিনমজুরের কাজ করছেন। কেউ টোটো চালক, কেউবা এখনও কাজ খুঁজে চলেছেন।

গঙ্গাসাগরের ধবলাট গ্রাম পঞ্চায়েতের শিবপুরের বাসিন্দা, ২৯ বছরের যুবক সমীর জানা কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার হয়েও করোনার কারণে কাজ হারিয়ে এখন টোটো চালাচ্ছেন।ছোটবেলা থেকে আর্থিক অনটনের মধ্যে বড় হয়েছেন সমীর। অত্যন্ত মেধাবী। ২০০৮ সালে সুন্দরবন জলকল্যাণ সংঘ নিকেতন থেকে উচ্চমাধ্যমিক পাশ করে। তারপর বিএ ক্লাসে ভর্তি হলেও আর্থিক অনটনের জন্য পড়া হয়ে ওঠেনি।

তারপর কেটে গিয়েছে কয়েক বছর। বিভিন্ন জায়গায় কাজ করে উপার্জন করে ২০১৭ সালে বেলুড় মঠে কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং নিয়ে ভর্তি হন। ২০১৯ সালে পাশ করেন। তারপর থেকে রুদ্রনগর দেবেন্দ্র বিদ্যাপীঠে পার্টটাইম হিসাবে কাজ শুরু করেন। পাশাপাশি প্রাইভেট কোচিং শুরু করেন কিন্তু বর্তমানে করোনা ভাইরাসের কারণে স্কুল ও প্রাইভেট কোচিং বন্ধ থাকায় দিশাহারা হয়ে পড়েছিলেন সমীর।

তারপর সংসারের হাল ধরার জন্য ধারদেনা করে একটি টোটো কেনেন তিনি। এখন সারা সাগরে টোটো চালান। সকালে বেরিয়ে ফেরেন সেই রাতে। কোনও কোনও দিন দুপুরে বাড়ি ফিরলেও কিছু সময়ের জন্য। সমীর জানা বলেন, হ্যাঁ, আমি শিক্ষিত হয়েও, একটি স্কুলের কম্পিউটারের পার্শ্বশিক্ষক হওয়া সত্ত্বেও টোটো চালাই।

আমার বন্ধুবান্ধব, আত্মীয়স্বজন বলে, এত পড়াশুনা, এতকিছু করে শেষপর্যন্ত টোটো চালাচ্ছিস! তাদের বলি, কোনও কাজই ছোট না। করোনার জন্য গত বছর থেকে বন্ধ স্কুল, টিউশন, প্রাইভেট। তাই সংসারের হাল ধরতে টোটো চালাই এবং বাবা-মায়ের পাশে দাঁড়িয়েছি।

Related Articles

Back to top button