26 Jul 2021, 8:24 AM (GMT)

Coronavirus Stats

31,439,764 Total Cases
421,411 Death Cases
30,613,047 Recovered Cases
খবররাজ্য

কমিশনের রিপোর্ট পেশ, অপরাধীদের তালিকায় একাধিক তৃনমূল নেতা, বিধায়ক

স্টাফ রিপোর্টার: বৃহস্পতিবার ভোট পরবর্তী হিংসায় কলকাতা হাইকোর্টকে কড়া রিপোর্ট দিল জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের কমিটি৷ কমিটির পাঁচটি টিম রাজ্যের ৩১১ টি হিংসা কবলিত এলাকা ঘুরে দেখে আদালতকে সিবিআই তদন্তের সুপারিশ করেছে৷ তাদের মতে, এত বড় ষড়যন্ত্রের তদন্তে সিবিআইকে প্রয়োজন৷ কমিটির পর্যবেক্ষণ, আইনের শাসন নয়, বরং শাসকের আইন চলছে রাজ্যে৷

কেবল এটুকুই নয়, জাতীয় মানবাধিকার কমিশন জেলা, এমনকী এলাকা ধরে ধরে দুষ্কৃতীদের নামের তালিকা দিয়েছে রিপোর্টে৷ যারা সেই অঞ্চলে হিংসা চালিয়েছে৷ চাঞ্চল্যকর বিষয়টি হল, কমিশনের ভোট-পরবর্তী হিংসা তদন্ত কমিটির রিপোর্টের ‘কুখ্যাত অপরাধী ও দুষ্কৃতী’দের তালিকায় রয়েছে একাধিক তৃণমূল নেতা ও বিধায়কদের নাম৷ জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের রিপোর্টে কোচবিহার জেলার শীতলকুচি, সিতাই, দিনহাটা, তুফানগঞ্জ ও কোতয়ালির ভোট-পরবর্তী হিংসার কথা উল্লেখ করা হয়েছে ৷

১৭ জন দুষ্কৃতীর নামের তালিকা দেওয়া হয়েছে৷ তার মধ্যে রয়েছেন প্রাক্তন তৃণমূল কাউন্সিলর জয়দীপ ঘোষ৷ এমনকী প্রাক্তন তৃণমূল বিধায়ক উদয়ন গুহর নামও রয়েছে তালিকায়৷ কলকাতা শহরের চিৎপুরে তৃণমূল নেতা উমা দাস ও তাঁর স্বামী লাল্টু দাসেরও নাম রয়েছে৷ নন্দীগ্রামে ৫ জনের নাম দিয়েছে কমিশন৷ উল্লেখযোগ্যভাবে সেখানে রয়েছে নন্দীগ্রাম আসনে তৃণমূল প্রার্থী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্বাচনী এজেন্ট শেখ সুফিয়ানের নাম৷

পূর্ব বর্ধমান সদরে ভোট-পরবর্তী হিংসায় নাম রয়েছে বিধায়ক খোকন দাসের৷ এমনকি সন্দেশখালিতে হিংসার ঘটনায় নাম রয়েছে তৃণমূল বিধায়ক তথা রাজ্যের মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের৷ উত্তর কলকাতার তৃণমূল নেতা জীবন সাহার নামও রয়েছে তালিকায়৷ অপরাধীদের তালিকায় রয়েছে কয়েকজন সিভিক ভলান্টিয়ারের নামও৷ কমিশনের রিপোর্টে নিষ্ক্রিয় পুলিশ আধিকারিক ও থানার তালিকাও দেওয়া হয়েছে৷

যেখানে একাধিক ভোট পরবর্তী হিংসার ঘটনা ঘটলেও এফআইআর নেওয়া হয়নি৷ কটি হিংসার ঘটনা ঘটেছিল এবং কতগুলি এফআইআর নেওয়া হয়নি তা উল্লেখ করেছে কমিশনের কমিটি৷ কমিশনের তদন্ত কমিটি রিপোর্টে জানিয়েছে, ঘরবাড়ি, দোকানপাট, গাড়ি ভাঙচুর হয়েছে।

লুটপাট করা হয়েছে। কোথাও বাড়ির ইলেকট্রিক লাইন কেটে দেওয়া হয়েছে। অনেক জায়গায় ঘরে ফিরতে চাইলে মোটা টাকা দাবি করা হয়েছে। এই পরিস্থিতিতে সিবিআই তদন্ত প্রয়োজন। তাদের মতে, বিশেষ আদালত তৈরি করে বিচার করার প্রয়োজন রয়েছে।

Related Articles

Back to top button