26 Jul 2021, 7:53 AM (GMT)

Coronavirus Stats

31,439,764 Total Cases
421,411 Death Cases
30,613,047 Recovered Cases
খবরদক্ষিণ ২4 পরগণারাজ্য

উদ্ধার হল নিখোঁজ ১০ জন মৎস্যজীবীর দেহ

অমিত মন্ডল ও রবীন্দ্রনাথ মন্ডল, নামখানা : দীর্ঘ সময় তল্লাশির পর অবশেষে উদ্ধার হল নিখোঁজ মৎস্যজীবীর দেহ। বৃহস্পতিবার গভীর রাতে ডুবে যাওয়া ট্রলারে তল্লাশি চালিয়ে নিখোঁজ ৯ জন মৎস্যজীবীর দেহ উদ্ধার হয়েছে। এদিন বিকেল নাগাদ কালিস্থানের কাছে আরও একজন মৎস্যজীবীর দেহ উদ্ধার হয়।

এ দিন গভীর রাতে নামখানার ফ্রেজারগঞ্জ মৎস্য বন্দর ও অমরাবতীর বালিয়াড়া চরে বহু মানুষ জমায়েত হন। সবারই নজর ছিল ডুবে যাওয়া ট্রলারটির দিকে। দীর্ঘ সময় তল্লাশির পর এক এক করে নিখোঁজ মৎস্যজীবীর দেহ উদ্ধার হয়। পুলিশ সূত্রে জানা যায়, মৃত মৎস্যজীবীরা হলেন বুদ্ধদেব মাইতি, নারায়ণ শাসমল, পাঁচু গোপাল জানা, রবিন কর, অজিত বেরা, গৌতম পড়ুয়া, সৈকত দাস, সৌরভ দাস, গৌরহরি দাস ও অনাদি শাসমল। প্রত্যেকেই দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার নামখানা এলাকার বাসিন্দা।

এবিষয়ে সুন্দরবন উন্নয়ন মন্ত্রী বঙ্কিমচন্দ্র হাজরা বলেন, “ঘটনাস্থলে মোট ১৪টি ট্রলার গিয়ে ডুবে যাওয়া ট্রলারটিকে উদ্ধার করে ফ্রেজারগঞ্জের ঘাটে নিয়ে এসেছে। ট্রলারের ভেতরে তল্লাশি চালিয়ে নিখোঁজ ৯ জন মৎস্যজীবীর দেহ উদ্ধার হয়েছে। পরে আরও এক জন মৎস্যজীবীর দেহ উদ্ধার হয়েছে। মৃত মৎস্যজীবীদের দেহ সনাক্তকরণ করা হয়েছে।

পরে কাকদ্বীপ মহকুমা হাসপাতালে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে।”তবে বৃহস্পতিবার দুপুরে নামখানাতে আসেন মৎস্যমন্ত্রী অখিল গিরি, সুন্দরবন উন্নয়ন মন্ত্রী বঙ্কিমচন্দ্র হাজরা ও জেলাশাসক পি উল্গানাথন। এই দুই মন্ত্রীর উপস্থিতিতে মৃত মৎস্যজীবী পরিবারের সদস্যদের হাতে দু লক্ষ টাকা করে চেক তুলে দেওয়া হয়।

এই বিষয়ে মৎস্য মন্ত্রী অখিল গিরি বলেন, ঘটনাটি খুবই দুঃখজনক। তবে এইরূপ ঘটনার যাতে পুনরাবৃত্তি না ঘটে, রাজ্য সরকার ও জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে একটি বৈঠক ডাকা হয়েছে। সেই বৈঠকে আলোচনার মাধ্যমে একটি সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।উল্লেখ্য, বুধবার ভোর পাঁচটা নাগাদ গভীর সমুদ্রে হঠাৎই একটি ট্রলার ডুবে যায়। সেই সময় দু’জন মৎস্যজীবীকে জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করা সম্ভব হলেও, বাকি ১০ জন মৎস্যজীবী নিখোঁজ ছিলেন।

এরপরই ট্রলারটিকে উদ্ধার করে উপকূলের দিকে টেনে নিয়ে আসার জন্য প্রস্তুতি শুরু হয়। কিন্তু ওই সময় নদীতে ভাটা থাকার কারণে ট্রলারটিকে উদ্ধার করতে বেশ বেগ পেতে হয়। অবশেষে গভীর রাতে ডুবে যাওয়া ট্রলারটিকে উদ্ধার করে ফ্রেজারগঞ্জের বালিয়াড়া চরে নিয়ে আসা হয়। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত ১১ই জুলাই নামখানার দশ মাইলের এফ.বি. হৈমবতী ট্রলারটি গভীর সমুদ্রে মাছ ধরতে গিয়েছিল।

ওই ট্রলারে মোট ১২ জন মৎস্যজীবী ছিলেন। মাছ ধরে বুধবার ট্রলারটি উপকূলের দিকে ফিরছিল। উপকূলে ফেরার সময় ট্রলারটি রক্তেশ্বরী নামক একটি চড়ার কাছে হঠাৎই উল্টে যায়। তবে এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে কাকদ্বীপ মহকুমা জুড়ে নেমে এসেছে শোকের ছায়া।

Related Articles

Back to top button